News

Round table Discussion

“Climate Finance Inadequate”

Dhaka, 09 Feb 2017:

Press Statement

Paris Climate Agreement: Potential and Challenges of Bangladesh

 On 12 December 2015, the highly expected Paris deal has been adopted at the French capital city under the United Nations Framework Convention on Climate Change this year. We acknowledge this as it is a historic deal as of an active civil society in Bangladesh. The agreement basically is pact limiting global warming to 2°C above pre-industrial level, and to limit the temperature with an aspirational target of 1.5°C above pre-industrial level- included also.

For the first time all the Parties came on a little consensus after established the UNFCCC in 1992. Though the agreement has failed to take imperative demands for the most vulnerable countries like Bangladesh, there some new opportunities come into sight for Bangladesh. There, however, are some challenges to effective these potentials.

It is noted that for the first time Governments have clearly signaled an end to the fossil fuel era to have committed a world of carbon free development. So, giving emphasis to carbon-based electricity production for the country like Bangladesh could not be sustained anymore. Rather, it is high time avoiding carbon-based fuel use replacing by renewable fuel use.

Even though, the experts’ consensus about the mitigation under this agreement shows the anxiety of holding temperature increase into 2ºC. In the agreement there is no obligatory provision to curb carbon emission rather than it is depends on Parties willingness. As a result, there is no obligatory pressure to the polluter countries to mitigation, rather than small countries included for mitigation process under Nationally Determined Contributions (NDC) and the pressure will increase in future.

Note that, though there are many important things in Paris Agreement but poorly. Even there have opportunities to explain many things in many ways. However, there has a separate Article (Article 8) on loss and damage but the there has not included the matter of Confession of responsibility and compensation by the developed countries to address the loss and damage. Though the issue of funding is exist but the source of funding is not clear. Also, the mentioned $ 10 billion in this agreement for climate financing is very little. Because, at least one trillion dollars need to spend by the states each year to limit the global temperature below two degrees within this century.

We had the expectation to the Loss and Damage that the issue of rehabilitation of Displaced and Migrant community will get the proper attention but ignoring this insurance gets more attention for addressing or understanding the Loss and Damage issue. But this case, it needs to more attention for rehabilitate the displaced people as well as insurance developing a ‘social safety net’ to protect the life and livelihoods of most vulnerable people. In Bangladesh, a model can be brought out through subject related extensive research to address the Loss and Damage due to climate change.

Government has to take more strong position in favour of previous commitment of taking no loan for adaptation. Government has not yet able to develop the National Implementing Agency (NIA) to receive the support from the said Green Climate Fund of 100 Billion dollar and it is not acceptable to get the allocation via an Intermediate international agent. Bangladesh Government should take urgent initiatives to capacitate any suitable government institute to receive the funding support directly from this fund.

 All the developing countries have to prepare `National Adaption Plan (NAP)` to get the financial support from Green Climate fund for adaptation purpose, so the matter becomes very urgent for Bangladesh. In the context of global initiatives and strong political commitment, Bangladesh finalized the NAP road map efficiently early this year-, which will provide the national plans a solid foundation to become a powerful planning incorporating climate change and ensuring climate resilience. So rapid mass participation, transparency and nationally taking initiatives to prepare NAP will be the major progress of achieving the aim of Paris agreement.

Is it new or additional it is not clear in financing though previously it was mentioned to provide the public money and grant to the Least Developed Countries. Now government have to take initiatives to ensure receiving this grant based support and successfully implement the National Adaptation Plan using this support.

G77 fails again in the discussion of the countries to play any significant role in favour of the position of the Small Island Developing States (SIDS) and Least Developed Countries (LDCs). So Bangladesh should take initiatives to make the Most Vulnerable Countries(MVCs) group more active and guiding this group to being forward.

Despite the sincere efforts of some members, Bangladesh delegation team does not able to play the expected role this year again especially, due to not having the correct political direction and lack of coordination with the representatives of civil society.

In this context, NCC,B strongly claims to take  urgent initiatives for implementing the following demands

1)      In the light of Paris Agreement, Bangladesh has to take the highest political effort to keep the global temperature within the limit of 1.5°C

2)      Quick action must be taken in order to create the National Adaptation Plan (NAP) within 2018 through the mass participation and the transparency

3)      To get the direct assistance from the ‘Green Climate Fund’, immediate steps will have to take to increase the capacity and efficiency of the national financial institutions to form the National implementing Agency (NIA).

4)      To protect the life and livelihoods of most vulnerable people, aim to rehabilitate the displaced through developing the ‘Social Safety net’, a model must be brought through subject related extensive research to address the Loss and Damage due to climate change.

5)      A well-defined political commitment must be declared in favor of the aforesaid positions of the Government to do not take any credit for adaptation to climate change

6)      as well as G 77+ China’s Group all kinds of necessary initiatives will have to take to make the Most Vulnerable Countries Forum (MVCs) more active

7)      Considering the global climate talks in the national context, an active and long-term participation of civil society with the government delegation have to be managed.

Roundtable Discussion

“Road to Paris: Our Aspiration and Challenges”

Dhaka, 19 Nov 2015: Network on Climate Change, Bangladesh (NCC,B) organized a roundtable discussion titled ‘Road to Paris: Our Aspiration and Challenges’ on 19th November, 2015 at PKSF Bhaban at the forthcoming Conference of the Parties (COP21) to be held from 30th November to 11 December 2015 at Paris, France. In this discussion, participants strongly demands to the Bangladesh negotiation team to hold a strong position in that conference against the loan and co financing option of Green Climate Fund and also to raise demand for a separate work programme for climate displacement and migration. In the roundtable discussion at PKSF Bhaban, Mr. Kazi Wahiduzzaman, Chairperson of NCC,B and Chief Executive of Nabolok, presided over the meeting while Dr. Qazi Kholiquzzaman Ahmad, Chairman of Palli Karma-Sahayak Foundation (PKSF) and Md. Abdul Karim, Managing Director of Palli Karma-Sahayak Foundation (PKSF) were present respectfully as Chief Guest and Special Guest.

 

Chair of the Roundtable Mr. Kazi Wahiduzzaman said, big emitters are trying to manipulate the discussions of climate convention from the early days of negotiation. As we are the victim of negative impacts of climate change, so we need to raise the voice locally, nationally and internationally. Chief Guest Dr. Qazi Kholiquzzaman Ahmad said, the CoP process, is always a very political process. We should take well preparation both the civil society and government delegates for better negotiation outcomes.He also speaks on the issues of climate financing, adaptation and Paris agreement. Special guest Md. Abdul Karim says, we are very hopeful to an agreement that is called legally binding agreement. Bangladesh should keep its position as an active LDCs leader in climate negotiation. Mizanur Rahman Bijoy, Coordinator, NCC,B said, The aim of this roundtable is to raise common consensus among Government delegation members and civil society on some core demands.

The meeting was facilitated by Mizanur Rahman Bijoy, Coordinator of NCC,B Trust, where Dr. Fazle Rabbi Sadeque Ahmed, Project Coordinator, PKSF; Mirza Shawkat Ali, Director, CCIC and Focal Point, CCC; Md. Ziaul Haque, Deputy Director, Department of Environment; M. Hafijul Islam Khan, Executive Director, Centre for Climate Justice-Bangladesh and Kawser Rahman, President of Climate Journalist were as panel discussant in various issues of the COP negotiation. Beside them Dr Md Khalid Hossain, Project Coordinator, Climate Change Unit,CCDB; Mr. Sarder Shafiqul Alam, Coordinator, ICCCAD, Independent University, Bangladesh; Abu Naser Khan, Poribesh Bachao Andolon (POBA) of representative; S. Jahangir Hasan Masum, Executive Director, Coastal Development Partnership (CDP) and Md. Arifur Rahman, General Secretary, SUPRO also speak in the meeting.

 ———————————————————————————————————————————————————————

সংবাদ সম্মেলন

কপ-২১ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্ব প্রদানের দাবিতে চার মাসব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা

ঢাকা, ১০ আগস্ট, ২০১৫: নেটওয়ার্ক অন ক্লাইমেট চেঞ্জ, বাংলাদেশ-ট্রাস্ট (এনসিসি’বি-ট্রাস্ট) আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে আসন্ন প্যারিস জলবায়ু সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্ব প্রদান জলবায়ু অর্থায়নের নামে কোন ঋণ গ্রহণ না করা এবং জলবায়ু বাস্তুচ্যূতদের জন্য বিশেষ কর্মসূচি গ্রহণের দাবিতে চার মাসব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে।

এনসিসি’বি- ট্রাস্ট’র কোঅর্ডিনেটর মিজানুর রহমান বিজয় এর সঞ্চালনায় ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটিতে অনুষ্ঠিত এই সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বিবৃতি প্রদান করেন এনসিসি’বি ট্রাস্ট এর গাজী মনজুরুল আলম।

মিজানুর রহমান বিজয় বলেন, আগামী ৩০ নভেম্বর হতে ১১ ডিসেম্বর ২০১৫ সময়ে জাতিসঙ্ঘের জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত কাঠামোগত সম্মেলন(কপ-২১) গত ২০০৭ সাল থেকে চলমান জলবায়ু আলোচনাকে একটি ভারসাম্য মূলক ও গ্রহণযোগ্য চুক্তিপত্র প্রণয়নের মাধ্যমে বিশ্ববাসীকে  আশ্বস্ত করবে বলে আশা করছি। এই সম্মেলন বিশ্বের কোটি কোটি মানুষকে জলবায়ু পরিবর্তনজনিত  ঝুঁকি ও বিপন্নতার হাত থেকে রক্ষার শেষ সুযোগ।

সংবাদ সম্মেলনে আরও বক্তব্য রাখেন উন্নয়ন ধারা ট্রাস্টের আমিনুর রসুল বাবুল এবং অনলাইন নলেজ সোসাইটির প্রদীপ রায়।

কোন কোন দেশের খামখেয়ালিতে বা বাংলাদেশের মতো বিপন্ন দেশগুলির দুর্বল প্রস্তুতির কারনে প্যারিসে বিশ্বব্যাপী গ্রহণযোগ্য ও ভারসাম্যমূলক একটি চুক্তিতে উপনীত হতে ব্যর্থ হলে তার দায়ভার বিশ্বের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের ওপরেই বর্তাবে বলে এনসিসি’বি মনে করে। তাই বাংলাদেশের  নাগরিক সমাজের পক্ষে এনসিসি’বি এই সম্মেলনকে কেন্দ্র করে সরকারের বিশেষ রাজনৈতিক কমিটমেন্ট এবং বিপন্ন মানুষদের অধিকার রক্ষায় কয়েকটি সুনির্দিষ্ট দাবীর ওপর জোর দিয়ে লিখিত বিবৃতি প্রদান করে।

লিখিত বিবৃতিতে এ বছরের নভেম্বর-ডিসেম্বরে ফ্রান্সের প্যারিসে অনুষ্ঠিতব্য বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলনকে উদ্দেশ্য করে  এনসিসি’বি ট্রাস্টের পক্ষ থেকে চারটি দাবী তুলে ধরা হয়।

(ক) বৈশ্বিক তাপমাত্রা ১.৫° সেন্টিগ্রেডের মধ্যে সীমিত রাখার কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণে বাংলাদেশের শক্তিশালী ভূমিকা নিশ্চিত করা;

(খ) জলবায়ু অর্থায়নের নামে ঋণের (Loan) বাণিজ্য সম্প্রসারণের অপচেষ্টার বিরুদ্ধে বাংলাদেশ সরকারের সুস্পষ্ট অবস্থান গ্রহণ;

(গ) জলবায়ু পরিবর্তনজনিত ক্ষয়-ক্ষতির বিষয়টিকে প্যারিস চুক্তির অন্তর্ভূক্ত করা এবং জলবায়ু পরিবর্তনজনিত স্থানান্তর ও অভিগমন বিষয়ে একটি পৃথক ওয়ার্ক প্রোগ্রাম চালু করার জন্যে প্রয়োজনীয় প্রস্তাব পেশ এবং

(ঘ) বাংলাদেশসহ জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বিপন্ন দেশগুলির  নেতৃত্ব প্রদানে এবং দরিদ্র মানুষের অধিকার রক্ষার বলিষ্ঠ কন্ঠস্বর হিসেবে আসন্ন প্যারিস সম্মেলনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতি।

এই দাবী আদায়ের লক্ষ্যে এনসিসি’বি-ট্রাস্ট এবং সমমনা নাগরিক সংগঠন, এনজিওসমূহ আগামী চার মাসব্যাপী (সেপ্টেম্বর-ডিসেম্বর) দেশব্যাপী গণসংযোগ কর্মসূচি পালন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবর পোষ্ট কার্ড ও  স্বারকলিপি প্রদান, জলবায়ু আলোচনায় নেতিবাচক ভূমিকা পালনকারী দেশগুলির দূতাবাসে স্মারকলিপি প্রদান, সেমিনার, গোলটেবিল বৈঠক এবং মানববন্ধন আয়োজনের ঘোষনা প্রদান করা হয়।

জলবায়ু তহবিল থেকে পিছুটান

সমকাল, ০৪ মে ২০১৫: ঢাকঢোল পিটিয়ে নিজস্ব অর্থায়নে জলবায়ু ট্রাস্ট ফান্ড গঠন করে সরকার। ফান্ডে প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা বরাদ্দও দেওয়া হয়। শুরু থেকে জলবায়ু তহবিলের প্রকল্প নিয়ে দুর্নীতির নানা অভিযোগ উঠেছে। সাত বছর আগে নেওয়া ২১৭ প্রকল্প বাস্তবায়ন না হলেও কোনো কোনো প্রকল্প থেকে বরাদ্দের পুরো অর্থ তুলে নেওয়া হয়েছে। কোথাও কোথাও প্রকল্পের কাজ না করেই অর্থ আত্মসাৎ করা হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড ১১৭ প্রকল্পের মাধ্যমে তহবিলের অর্থ আত্মসাৎ করেছে। তহবিলের অর্থায়নে প্রকল্পের অগ্রগতির হারও অত্যন্ত শ্লথ। এ রকম পরিস্থিতিতে ফান্ডটি বিলুপ্ত করতে আসন্ন বাজেটে অর্থ বরাদ্দ না রাখারও ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে।
গত ১ এপ্রিল অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত পরিবেশ ও বনমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জুকে লেখা এক চিঠিতে জলবায়ু ট্রাস্ট ফান্ড না রাখার যৌক্তিকতা তুলে ধরে আসন্ন বাজেটে জলবায়ু তহবিলে অর্থ বরাদ্দ না রাখার ইঙ্গিত দেন। চিঠিতে অর্থমন্ত্রী বলেছেন, জলবায়ু প্রকল্প প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে দক্ষতা অর্জনে এ ফান্ডটি সাময়িকভাবে গঠন করা হয়। চূড়ান্ত পর্যায়ে এ ফান্ডটি বিলুপ্ত হবে। তিনি বলেন, এ ফান্ড পানি উন্নয়ন বোর্ডের কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য একটি নতুন জানালা ছাড়া আর কিছুই হয়নি। অর্থমন্ত্রী বলেন, রেজিলিয়ান্স ফান্ডের
ব্যবস্থাপনা থেকে বিশ্বব্যাংক সরে যাওয়ায় ওই ফান্ড সরকার পরিচালনা করতে পারবে। একই সঙ্গে দুটি ফান্ড, বিশেষ করে ট্রাস্ট ফান্ড রাখার কোনো যৌক্তিকতা নেই বলে মন্তব্য করেন তিনি। অর্থমন্ত্রী তার চিঠিতে উল্লেখ করেন, ‘কোনোমতেই এই তহবিলকে পানি উন্নয়ন বোর্ডের বা বনায়ন কার্যক্রমের একটি নতুন জানালা হিসেবে বিবেচনা করা হবে না।’
এ বিষয়ে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান সমকালকে বলেন, বিসিসিটিএফ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে সরকার বিশ্বে অনন্য নজির স্থাপন করে। এর মাধ্যমে বৈশ্বিক উৎস থেকে পর্যাপ্ত তহবিল প্রাপ্তির সুযোগও সৃষ্টি হয়েছে। সরকারের নিজস্ব এ ফান্ডের অর্থে ছোট ছোট জরুরি অনেক প্রকল্প ত্বরিত বাস্তবায়ন সম্ভব। এমন একটি ফান্ড থেকে সরকারের সরে আসার কোনো যৌক্তিকতা নেই। আসন্ন বাজেটে বাংলাদেশ ক্লাইমেট চেঞ্জ ট্রাস্ট ফান্ডে (বিসিসিটিএফ) নূ্যনতম ২০০ কোটি টাকা অর্থ বরাদ্দেরও দাবি জানান তিনি।
গত ২০ এপ্রিল পরিবেশ ও বনমন্ত্রী এবং ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মঞ্জু অর্থমন্ত্রীকে চিঠি দিয়ে ফান্ডটি অব্যাহত রাখার বিষয়ে ব্যাখ্যা দিয়েছেন। চিঠিতে তিনি বলেছেন, এই ফান্ড গঠন করে প্রধানমন্ত্রী বিচক্ষণ ও দূরদর্শী নেতৃত্বের দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। এ উদ্যোগটি বিশ্বে উদাহরণ হিসেবে গণ্য করা হয়। এ ফান্ড ‘গ্রিন ক্লাইমেট ফান্ড’ থেকে অর্থ প্রাপ্তির যোগসূত্র হিসেবে কাজ করছে। ট্রাস্ট বিষয়ে হঠাৎ কোনো সিদ্ধান্ত নিলে উন্নয়ন সহযোগী ও আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে নেতিবাচক ধারণার জন্ম দেবে।
জলবায়ু পরিবর্তন, অভিযোজন ও উপশম সংক্রান্ত কার্যক্রম পরিচালনায় সহায়তা করতে উন্নত বিশ্বের দেশগুলো গ্রিন ক্লাইমেট ফান্ডে ২০২০ সাল থেকে বছরে ১০০ বিলিয়ন ডলার করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গ্রিন ফান্ড কার্যকরের আগে এ ফান্ড বন্ধ করা ঠিক হবে না। এ বিষয়ে নেটওয়ার্ক অন ক্লাইমেট চেঞ্জ ইন বাংলাদেশ-এর কোঅর্ডিনেটর মিজানুর রহমান বিজয় সমকালকে বলেন, ফান্ড বন্ধ করে দেওয়ার অর্থ হচ্ছে_ বাংলাদেশ জলবায়ু তহবিল ব্যবস্থাপনায় সক্ষম নয়। আর এটি বৈশ্বিক পর্যায়ে প্রমাণ হলে বাংলাদেশ দীর্ঘ মেয়াদে জলবায়ু ক্ষতিপূরণের অর্থ প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হবে।
২০০৯ সালে ট্রাস্ট ফান্ড গঠনের বছর বাজেটে ৭শ’ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়। পর পর তিন বছর বাজেটে ৭শ’ কোটি টাকা করে মোট ২ হাজার ১শ’ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়। এরপর ২০১২-১৩ অর্থবছরে বরাদ্দ কমিয়ে ৪০০ কোটি টাকা করা হয়। এর পরের বছর থেকে চলতি অর্থবছরে বাজেটে মাত্র ২০০ কোটি টাকা করে বরাদ্দ রাখা হয়েছে। ফান্ডে এ পর্যন্ত মোট ২ হাজার ৯শ’ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।
জলবায়ু ট্রাস্ট ফান্ড ২০০৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত ২৭৭টি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে। এসব প্রকল্পে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ২ হাজার ২১৪ কোটি ৯০ লাখ ৩৪ হাজার ৭২১ টাকা। ৬৩টি বেসরকারি সংস্থার নামে ২৫ কোটি ছয় লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি সংস্থা এসব বরাদ্দ পেয়েছে। গত সাত বছরে মাত্র ৬৫টি প্রকল্পের কাজ শেষ হয়েছে। ৮৫টি প্রকল্প ২০০৯ সালের ৩০ জুন শেষ করার কথা থাকলেও এখন পর্যন্ত এসব প্রকল্পের ৩০ শতাংশ কাজও হয়নি। অথচ এসব প্রকল্পের প্রায় পুরো টাকাই তুলে নেওয়া হয়েছে। প্রকল্পের কাজে ধীরগতি ও অব্যবস্থাপনার অভিযোগে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ট্রাস্ট ফান্ডের ৩৫তম সভায় ১২টি প্রকল্পের মেয়াদ বৃদ্ধি ও ২৩টি প্রকল্পের ব্যয় কমানো হয়েছে। বর্তমানে প্রকল্প অনুমোদন ও বাস্তবায়নে কঠোর মনিটরিং জোরদার করায় প্রকল্পের কাজের অগ্রগতি কিছুটা বেড়েছে। দুর্নীতি ও অনিয়ম কমেছে বলেও ট্রাস্ট ফান্ড থেকে দাবি করা হয়েছে। জলবায়ু ট্রাস্ট ফান্ডের সদ্য বিদায়ী ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল কুদ্দুস এই ফান্ডে অর্থায়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখার পক্ষে মত দিয়েছেন। তিনি বলেন, প্রকল্পের কাজের গতি বাড়াতে প্রয়োজনে মনিটরিং জোরদার ও সক্ষমতা বৃদ্ধিতে নতুন আইন প্রবর্তন করা যেতে পারে।
২০০৯ সালে সরকারি অর্থায়নে বিসিসিটিএফ গঠনের সময় বলা হয়েছিল, সরকারের নিয়মিত উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর অনুমোদন, অর্থছাড় ও বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে দীর্ঘসূত্রতা রয়েছে কিন্তু জলবায়ু পরিবর্তন একটি জরুরি বিষয়, তাই দ্রুততার সঙ্গে বাস্তবায়ন শুরু করতে হবে। প্রকল্প অনুমোদন দেওয়ার জন্য ১০ জন মন্ত্রীসহ ১৫ সদস্যের জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্টি বোর্ড গঠন করা হয়। অর্থ ছাড়ের দায়িত্ব থাকে অর্থ মন্ত্রণালয়ের হাতে। এখন অর্থ মন্ত্রণালয় তহবিল ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগকে (ইআরডি) দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে বলে জানা গেছে।
সরকার ৩৭টি মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে প্রতি বছর প্রায় আট হাজার কোটি টাকা জলবায়ু পরিবর্তন খাতে ব্যয় করে। এসব প্রকল্প বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আওতায় বাস্তবায়িত হয়। এর বাইরে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় গত তিন বছরে মোট তিনটি স্বতন্ত্র তহবিল গঠন করা হয়েছে। পাঁচ হাজার কোটি টাকার এসব তহবিলের আওতায় এমন সব প্রকল্প নেওয়া হচ্ছে, যা এডিপির মধ্যেই রয়েছে। পরিকল্পনা কমিশনের বাংলাদেশে জলবাযু পরিবর্তনে সরকারি ব্যয় নামের একটি সমীক্ষা প্রতিবেদনে এসব তথ্য বেরিয়ে এসেছে। ফলে সব মিলিয়ে সরকারের জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলার কাজ সমন্বয়হীন এবং জোড়াতালি দিয়েই চলছে। পরিকল্পনা কমিশনের সূত্রগুলো বলছে, জলবায়ু তহবিলগুলোর মাধ্যমে ব্যয় করা অর্থের বড় অংশই ব্যবস্থাপনাগত ত্রুটি ও সমন্বয়হীনতার কারণে মূল সুবিধাভোগীদের কাছে পেঁৗছাচ্ছে না।
এ বিষয়ে আন্তর্জাতিক জলবায়ু বিশেষজ্ঞ ড. আইনুন নিশাত সমকালকে বলেন, জলবায়ু বিপদাপন্ন দেশ হিসেবে বাংলাদেশের দৃষ্টি হাজার কোটি ডলারের দিকে থাকা উচিত। বৈশ্বিক অর্থায়ন প্রক্রিয়ার সঙ্গে যথাযথ প্রস্তুতি নিয়ে অর্থ আনার চেষ্টা করতে হবে। সরকারকে প্রমাণ করতে হবে, বাংলাদেশ জলবায়ু প্রকল্প বাস্তবায়নের সক্ষমতা রাখে। আগামীতে বৈশ্বিক জলবায়ু তহবিল থেকে দুইভাবে অর্থায়ন হবে_ যেসব দেশের সক্ষমতা আছে তারা সরাসরি অর্থ পাবে। আর যারা সক্ষমতা প্রমাণ করতে পারবে না, তারা এডিবি বা ইউএনডিপির মাধ্যমে অর্থ পাবে। অর্থ মন্ত্রণালয় ইআরডির মাধ্যমে তহবিল আনার চেষ্টা করছে। তবে দেশের কোন আর্থিক প্রতিষ্ঠান এ কাজের জন্য যোগ্য সেটা ইআরডি চিহ্নিত করতে পারছে না। তারা বিদেশি প্রতিষ্ঠানকে এ কাজের জন্য টেন্ডার দিচ্ছে। এতে পুরো প্রক্রিয়াটি একটি জটিল অবস্থার দিকে যাচ্ছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।  

Sharing meeting on LAPA Process with the team of Nepal Ministry of Science, Technology and Environment

 

 

Dhaka 22 April, 2015: The process and experiences of Local Adaptation Plan of Action (LAPA), the only local adaptation plans that implemented by Nepal from 2011, presented by the representatives from the Nepal Ministry of Science, Technology and Environment (MOSTE) at NCC,B Secretariat on 22 April, 2015 .

At the onset, the discussion was welcome and moderated by Mizanur Rahman Bijoy, Coordinator, Network on Climate Change, Bangladesh (NCC,B). The LAPA process and experience in Nepal was presented by Naresh Sharma, National Project Manager of Nepal Climate Change Support Programme(NCCSP), Pragati Sharma, Climate change officer of MOSTE and Sunil Gurung.  In the presentation they shared the process and ground experiences. The LAPA framework aims to make adaptation planning a bottom-up, inclusive, responsive and flexible process. It identifies the most climate vulnerable people with 100 units. Farhana Sharmin, Program Manager, DRR & CC Programme from Practical Action; Dr Karsten Schroeder, Consultant, Md. Foezullah Talukder, Program Coordinator, and M Atikul Haque, Research Officer from CCDB; Gazi Manjurul Alam and M Forruq Rahman from NCC,B were also present in the discussion.

———————————————————————————————————————–

 Roundtable discussion on Climate Financing in Bangladesh

Demands for participatory Climate commission to increase

governance in climate financing

Dhaka-21 April, 2015: Speakers in a roundtable discussion titled Climate Financing in Bangladesh: Policy and Preparedness organized by Network on Climate Change, Bangladesh (NCC,B) demanded a separate Climate commission under the lead of Prime Minister to ensure transparency and accountability in climate financing . The discussion meeting was held at Dhaka Reporters Unity where Md. Abdul Quddus former Managing Director of BCCT was present as the Chief Guest while Md. Shamsuddoha, Executive director of CPRD and Mr. Nikhil bhadra, reporter of daily Kaler kantha were present as the special guests. Mizanur Rahman Bijoy, Coordinator of NCC,B guided the session and also presented the keynote paper.

Mizanur Rahman Bijoy said in his keynote paper, there has no opportunity for the climate vulnerable communities to take part in the planning process of Climate change projects. He emphasized on participatory decision making process and region based local adaptation plan. Moreover he said there have no alternatives of good governance to ensure comprehensive using of donor funds and transparency and accountability. To make the climate finance successive and progressive in Bangladesh aiming to execute the climate finance from an unique fund and increasing the transparency, accountability and efficiency of financing, he brought out the recommendations of formation of climate commission under the leadership of Prime minister after revising the climate change trust act 2010 immediately, making local climate fiscal framework separately for every district ‍accordingly with the Bangladesh   climate fiscal framework of finance ministry and to continue the regular and increasing allocation to BCCTF until the support starts from the GCF.

The chief guest Md. Abdul Quddus emphasized on policy formulation for increasing the capacity of BCCT and continuation of allocation to BCCTF. Climate specialist Md. Shamsuddoha urged to the government to take the challenge of collecting international finance supports making an entity corruption free, transparent and accountable.   

Human Chain observed in 15 Districts over the country

Dhaka 31 March, 2015: The Network on Climate Change, Bangladesh (NCC,B) has called for incorporating Local Adaptation Plan in NAP and also allocating budget separately in order to face climate change adversities in the country. They made the demand at a human chain organised in front of the National Press Club in the capital on 31 March, 2015 (Tuesday). Bangladesh Paribesh Andolan general secretary Abdul Matin, journalist Nikhil Bhadra, Ranjan Bakshi Nupu, Mahbubur Rahman, Manjurul Alam and Abdul Mannan spoke at the programme, conducted by Mizanur Rahman. They called on the government to use climate change fund in an effective way. They also demanded an amendment to Climate Change Act 2010 soon. As well as in the capital, the member organizations of NCC,B along with the District Climate Advocacy Forums also organized the same event in their respective districts from 11:00am to 12 O’clock. The districts are: Khulna, Rajshahi, Mymenshingh, Barisal Sadar, Sunamganj, Bagerhat, Pirojpur, Sherpur, Jhinaidaha, Tangail, Barisal (Agailjhora), Magura, Gopalganj and Satkhira. The network included Nabolok, CCDB, ASD, BASSA, CBSDP, Unnayan Dhara, SHAREE, LEDARS and Mati. They pressed an eight-point demand for immediate application laws to minimise green house gas emissions and fulfill other obligations.

————————————————————-

The rights of climate vulnerable flouted by the pressure of pollutant countries

Dhaka 19 Dec, 2014: The Network on Climate Change Bangladesh (NCC,B) has organized a Press briefing at National Press Club on the evaluation of LIMA outcomes (CoP 20) in perspective of Bagladeshi civil society. Mizanur Rahman Bijoy of NCC,B moderated the meeting while Md. Shamsuddoha of CPRD and Mr. Jahangir Hasan Masum of CDP were present as the civil society representatives. Gazi Manjurul Alam of NCC,B presented the written statement in the press briefing. The speakers said, ‘Lima call for climate action’ failed to uphold the rights of the vulnerable countries to climate change impacts. The conference will be treated as the historical defeat of the poor and vulnerable countries like Bangladesh. The civil society stated ten points demands including urgent and drastic measure to limit the temperature raise below 2°C, to set an adaptation goal, to include loss and damage in the upcoming Paris agreement, a clear road map for climate financing, separate work program for climate migration and displacement and to include local adaptation planning in the NAP process. The speakers also demand to the Bangladesh government for taking the immediate initiatives to find out the efficient strategy for effectively facing the challenge of Paris conference in next year.

—————————————————————————————————————————————

Combatting Climate Change

Propose monitoring wing in South Asia

Greens urge govt

Dhaka 12 Nov, 2014: Green activists yesterday urged the government to place a proposal at the upcoming Saarc summit in Nepal to set up an independent wing to monitor climate change and disaster issues in South Asia. As the South Asian countries, including Bangladesh, are in the acute risk of disasters caused by the impact of climate change, the Saarc countries must work together to combat the risk of loss and damages, they added. This year’s Saarc summit is scheduled for November 26 and 27 in Kathmandu. Dr Ahsan Uddin Ahmed, executive director of the Centre for Global Change, said South Asia is the most disaster prone region in the world and the people living there are mostly poor and vulnerable. The Saarc countries’ political leaders must raise voice to protect the region from the probable dangers of the climate change effect, thus they will be able to draw the global leaders’ attention, he added. He made the remarks at a consultation meeting on “People’s voice on CCA & DRR: Call to the Saarc leaders” organised by the Network of Climate Change of Bangladesh in Jatiya Press Club in the capital. The Saarc leaders established some unique institutions like Saarc food bank and Saarc agriculture centre but those are still facing many problems due to a lack of proper supervision, said Ahsan. Mizanur Rahman Bijoy, Coordinator of NCC,B, spoke among others. Ref: http://bd.thedailystar.net/propose-monitoring-wing-in-south-asia-50089

 

Contact Us

Maps